৭০-৮০ লাখ টাকা গিয়েছে তৃণমূল নেতা শান্তনু’র অ্যাকাউন্টে!

বেঙ্গল ওয়াচ ডেস্ক ::৭০ থেকে ৮০ লাখ টাকা গিয়েছে হুগলির তৃণমূল নেতা শান্তনু বন্দ্যোপাধ্যায়ের অ্যাকাউন্টে!

আর তা গিয়েছে ধৃত হুগলির আরও এক যুবনেতা কুন্তলের অ্যাকাউন্ট থেকে। ধাপে ধাপে সেই টাকা শান্তনুর অ্যাকাউন্টে গিয়েছে বলে জানতে পেরেছে ইডির আধিকারিকরা।

কিন্তু বিপুল পরিমাণ এই টাকার উৎস কিনা তা নিয়ে স্পষ্ট কোনও উত্তর দিতে পারেননি শান্তনু। শুক্রবা দফায় দফায় জেরা শেষে নিয়োগ দুর্নীতিতে শান্তনুকে গ্রেফতার করে ইডি। আর এই গ্রেফতারের খবর ছড়িয়ে পড়তেই বলাগড়ে বিজেপির তরফে মিষ্টি বিতরণ শুরু হয়ে যায়। এমনকি অকাল হোলি খেলতেও শুরু করে দেন বিজেপি নেতা-কর্মীরা।

এরপর গভীর রাত পর্যন্ত তৃণমূল নেতাকে দফায় দফায় জেরা করেন তদন্তকারীরা। একেবারে ব্যাঙ্ক অ্যাকান্টের যাবতীয় তথ্য দেখিয়ে শান্তনুকে জেরা করা হয় বলেও জানা গিয়েছে। কিন্তু বারবার তথ্য তিনি এড়িয়ে যাচ্ছেন বলে জানা গিয়েছে। অন্যদিকে শান্তনু এবং তাঁর পরিবারের নামে অন্তত ২০ টি জায়গাতে বিপুল সম্পত্তির খোঁজ পাওয়া গিয়েছে। যা মোটেই তৃণমূল নেতার আয়ের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়। ফলে বিপুল পরিমাণ এই টাকা কোথা থেকে আসল সেটাই খতিয়ে দেখছেন ইডির আধিকারিকরা।

অন্যদিকে শান্তনুর মাধ্যমেই তাপস মণ্ডল ও কুন্তল ঘোষের মধ্যে আলাপ তৈরি হয়। ইতিমধ্যে দুজনেই এই মুহূর্তে নিয়োগ দুর্নীতিতে গ্রেফতার হয়েছেন। গত কয়েক দফায় তাপস মণ্ডল এবং কুন্তলকে জেরা করে তদন্তকারী স্পষ্ট যে শান্তনুর অ্যাকাউন্টে টাকা গিয়েছে। নিয়োগ দুর্নীতিতে যে টাকা তাঁরা দুজনেই তৃণমূল নেতাকে দিয়েছে তা স্বীকার করেছে বলেও জানা গিয়েছে। অন্যদিকে গত ২০ জানুয়ারি হঠাত করেই তৃণমূল নেতা শান্তুনুর বলাগড়ের বাড়িতে হানা দেয় কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। আর এই দীর্ঘ তল্লাশিতে একাধিক নথি উদ্ধার করেন তদন্তকারী আধিকারিকরা। এমনকি একাধিক অ্যাডমিট কার্ডও উদ্ধার হয় শান্তনুর বাড়ি থেকে। এমনকি ৩১২ জনের একটা তালিকাও উদ্ধার হয়। এত তালিকা- অ্যাডমিট কার্ড কীভাবে এল সে বিষয়ে এদিন প্রশ্ন শান্তনু এড়িয়ে যান বলে জানা গিয়েছে।

পাশাপাশি নিয়োগের ক্ষেত্রে কোন পদের জন্যে কত টাকা নেওয়া হবে সেই তালিকাও নাকি তৈরি করেছিলেন শান্তনু। বিশেষ করে প্রাইমারি-আপার প্রাইমারি নিয়োগের ক্ষেত্রে কত টাকা নেওয়া হবে তা চূড়ান্ত করা হয় এক বৈঠকে। সেই বৈঠক কুন্তলের বাড়িতে হয় বলে জানতে পারেন আধিকারিকরা। আজ শনিবার ধৃত শান্তনুকে আদালতে তোলা হবে। নিজেদের হেফাজতে নেওয়ার জন্যে আবেদন জানাবে ইডি। এমনটাই জানা গিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *