নতুন করে শুরু হল সাক্ষরতা অভিযান

Digital Desk Reporter :

ভারত সরকারের নব ভারত শিক্ষা কার্যক্রম এর আওতায় ‘ রোটারি ইন্ডিয়া লিটারেসি প্রোগ্রাম ‘ এর অংশ হিসাবে বয়স্ক শিক্ষা কেন্দ্র খুলে হাওড়ার একাধিক প্রত্যন্ত অঞ্চলের বয়স্ক মহিলাদের পড়ানোর কাজ শুরু করল আমতার ‘ খড়দহ নিউ এজ সোসাইটি ‘ নামক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন

 

ভারত সরকার স্বনামধন্য সংস্থা Rotary India Literacy Program এর সঙ্গে জোট বেঁধে ২০২৭ সালের মধ্যে সারা ভারতের প্রায় ১০ কোটি প্রাপ্ত বয়স্ক অক্ষরজ্ঞানহীনদের (Adult Illarate) সাক্ষর করার লক্ষমাত্রা নিয়ে চালু করেছে ‘ নবভারত শিক্ষা কার্যক্রম ‘ এর আওতায় ‘ Adult Literacy Program ‘

এই কার্যক্রমের অংশ হয়ে হাওড়া জেলায় একাধিক পিছিয়ে পড়া এলাকার অক্ষরজ্ঞানহীন মহিলাদের নিয়ে ‘ বয়স্ক শিক্ষা কেন্দ্র ‘ খোলার কাজ শুরু করল আমতার খড়দহ নিউ এজ সোসাইটি।

পিছিয়ে পড়া এলাকার অক্ষরজ্ঞানহীন মহিলা অনেকেই নাম সই করতে না পারার কারণে ব্যাঙ্কে বিভিন্ন সরকারী প্রকল্পের আর্থিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত হন। অনেকে বোকা বানিয়ে তাদের প্রতারিতও করে। তাই সেই সমস্ত এলাকায় মহিলাদের সচেতন করতে ও তাদের সাক্ষর করতে সরকারী এই উদ্যোগের অংশ নিয়েছে ‘খড়দহ নিউ এজ সোসাইটি’।

সংগঠনের সভাপতি সায়ন দে ও হাওড়া জেলায় Adult Literacy program এর কোঅর্ডিনেটর সমাজকর্মী কল্যাণী পালুই হাওড়া জেলার আমতা ১, ২ বাগনান, শ্যামপুর, উলুবেড়িয়া সহ নানা পিছিয়ে পড়া এলাকায় এরকম প্রায় ৫০টিরও বেশি বয়স্ক শিক্ষা কেন্দ্র খোলার লক্ষমাত্রা নিয়েছেন।

গত কয়েকদিনে আমতা ১ নং ব্লকের খড়দহ গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার ভগবতীপুর, কুমারচক ও খড়দহ গ্রামে চারটি, বাগনান ১ নং ব্লকের জ্যোৎবীরেশ্বরে গ্রামে একটি, উলুবেড়িয়া ২ নং ব্লকের জগরামপুর গ্রামে দুটি, আমতা ২ নং ব্লকের খড়িগেড়িয়া গ্রামে দুটি সেন্টার চালু হয়েছে। এরপরে বাগনান, উলুবেড়িয়া, শ্যামপুরেও একাধিক বয়স্ক শিক্ষা কেন্দ্র খোলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান সংগঠনের সভাপতি তথা সংগঠক সায়ন দে। কল্যানী পালুই বলেন – আমাদের নারী অধিকার সুরক্ষা নিয়েই লড়াই। মাদক দ্রব্যের বাড় বাড়ন্ত, বাড়িতে অত্যাচারের শিকার, পড়াশোনা ছেড়ে বাল্যবিবাহ, নারী পাচার এই সমস্ত সামাজিক সমস্যাগুলোর মোকাবিলা করতে বড় হাতিয়ার হতে পারে ওদের মধ্যে শিক্ষার আলো জ্বালানো। এই কর্মসূচী সেই আলো জ্বালানোর কাজ করতে পারে বলেই বিশ্বাস।

 

এলাকার মহিলাদের মধ্যে উৎসাহও লক্ষ করার মতো। লক্ষীর ভান্ডার, বার্ধক্য ভাতা, বিধবা ভাতা – ইত্যাদির টাকা ব্যাঙ্ক থেকে এবার লেখাপড়া শিখে নিজেই নাম সই করে তুলবেন বলে জানান তারা।

এই কাজে মা বোনেদের পড়ানোর কাজ করছে কলেজ ছাত্রী সায়নী সাঁতরা, গৃহবধু অপর্ণা পণ্ডিত, অনিতা দোলুই, টুম্পা চক্রবর্তী, মনিকা প্রামানিক, রুমকি প্রামানিক, শর্মিষ্ঠা রায়, প্রাথমিক শিক্ষকের প্রশিক্ষণ নেওয়া

কানাই বাগ প্রমুখরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *