জমি হাঙড়দের হাত থেকে কলকাতাকে বাঁচানোর অনুরোধ বিচারপতির

বেঙ্গল ওয়াচ নিউজ ডেস্ক ::

 

 

 

 

কলকাতা মানেই প্রমোটরদের স্বর্গরাজ্য – এই মিথ যেভাবে হোক বন্ধ করতে হবে। কোলকাতার নাগরিকদের নিরাপত্তা সকলের আগে। শেষ পর্যন্ত আদালতের কাছ থেকে সেই অনুরোধ আসলো ফিরাদ হকেমের কাছে। কিন্তু কেন এই প্রশ্ন?

কলকাতা পুরসভার ৫ নম্বর বরোর ৪২ নম্বর ওয়ার্ডের এই বিল্ডিংটিতে চারতলা পর্যন্ত নির্মাণের ছাড়পত্র ছিল। হঠাৎ করে ২০২০ সালে বিল্ডিংটিতে চারতলার উপরে বেআইনিভাবে নির্মাণ শুরু হয়। বিষয়টি নজরে আসতেই কলকাতা পুর আইনের ৪০১ নম্বর ধারায় নির্মাণ বন্ধ করতে নোটিস পাঠায় পুরসভা। স্থানীয় থানাকেও বিষয়টি জানানো হয়। কিন্তু সেই নোটিস উপেক্ষা করেই সাততলা পর্যন্ত নির্মাণ শেষ হয়ে যায়। কিন্তু কোনও পদক্ষেপ করা হয়নি। এরপর বিষয়টি নিয়ে ‘টক টু মেয়রে’ অভিযোগ পেয়ে ওই বিল্ডিং পরিদর্শন করে পুর বিশেষজ্ঞরা জানিয়ে দেন,  চূড়ান্ত বিপজ্জনক এই নির্মাণটি অবিলম্বে ভেঙে না ফেললে যেকোনও সময় ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে। কিন্তু তা সত্ত্বেও কিছুই হয়নি। আর সেই সুযোগে এখন বেআইনি নির্মাণের ওই তিনটি তলায় চলছে ব্যবসায়িক কার্যকলাপ। তাই ভীত বিচারপতি।

এমন ঘটনা আগে বার বার চোখে পড়েছে। কিন্তু এবার ওই অবৈধ নির্মাণ খুবই ঝুঁকিপূর্ণ বলেই মনে করেন ইঞ্জিনিয়াররা।
বিচারপতি অমৃতা সিনহার প্রশ্ন, ‘বছর তিনেক আগে বিষয়টি নজরে এলেও পুর কর্তৃপক্ষ সেটি ভাঙতে কোনও পদক্ষেপ করল না? অথচ তারাই বলছে ওই নির্মাণটি চরম বিপজ্জনক। পুরসভার চরম গাফিলতি আর উদাসীনতাই এজন্য দায়ী।’
বর্তমানে ওই বেআইনি নির্মাণের অংশে যেহেতু একাধিক ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ড চলছে, তাই আপাতত সবপক্ষের বক্তব্য শুনে আট সপ্তাহের মধ্যে নির্মাণের ওই অংশ ভেঙে ফেলার নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতি সিনহা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *