সদ্য ধৃত ট্রাম্প ঘুষ দিয়ে পর্নো তারকাকে মুখ বন্ধ রাখতে কেন বলেছিলেন?

সুজিৎ চট্টোপাধ্যায় : সময়টা ২০০৬। ভূতপূর্ব মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বয়স তখন ৬১। এক গলফ টুর্নামেন্টে ট্রাম্পের আলাপ ৩৮ বছর বয়সী লাস্যময়ী পর্নো তারকা স্টর্মি ড্যানিয়েলের সঙ্গে। স্টমির আসল নাম স্তেফানি ক্লিফোর্ট। সেই সময়ে সদ্য ট্রাম্পের সন্তানের মা হয়েছেন ট্রাম্পের তৃতীয় স্ত্রী মেলেনিয়া। ডাক্তার তাঁকে বিশ্রামে থাকতে বলেন। সেই পুত্র সন্তানের নাম ব্যারন। ব্যারন এখন বছর কুড়ির তরুণ।

যৌন কেলেঙ্কারির অভিযোগে গ্রেফতার হওয়ার মুহূর্তের ছবি

কামিনী কাঞ্চনে আসক্ত ধনকুবের ট্রাম্প অস্থির হয়ে পড়েন নিত্যনতুন শয্যাসঙ্গিনীর জন্য। স্ত্রী যদি সদ্য ভূমিষ্ঠ সন্তানের দেখাশোনার কাজে ব্যস্ত থাকেন, যৌনতায় যদি ডাক্তারের বারণ থাকে তাহলে ট্রাম সাহেবের করার কি আছে? গলফের মাঠে স্টমিকে দেখে ক্ষুধার্ত বাঘের মত নজর ফেলেন পর্নো তারকা স্টর্মির দিকে। ট্রাম্পের শিকারী চোখ যখন স্টর্মির শরীরের সব বিপদজনক ভাঁজ নিরীক্ষণ করছে, স্টর্মিও বুঝে যান তাঁর শরীরে সাঁতার কাটার জন্য ধনকুবের ট্রাম্প কতটা উদগ্রীব। ফলে টাকার বিনিময়ে স্টেমি বিছানায় বরণ করে নেন ধনকুবের ট্রামকে।

লাস্যময়ী পর্নো তারকাদের সঙ্গে ট্রাম্প

ট্রাম্পের এই যৌন তৃপ্তির চাহিদা বরাবরের। গোল বাঁধল ট্রাম্প যখন অর্থের প্রাচুর্যে ক্লান্ত তখন তাঁর ইচ্ছা হলো খ্যাতি আর প্রতিপত্তি অর্জনের। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট চেয়ারে পড়ল নজর। বারাক ওবামার তখন অন্তিম লগ্ন মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে।রিপাবলিক দলের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হন ট্রাম্প। অকল্পনীয়ভাবে জিতেও যান। ২০১৭ নভেম্বর মাসে ট্রাম্প নির্বাচিত হওয়ার কয়েক মাস আগে মার্কিন ইতিহাসের লেখক ও অধ্যাপক রোনাল্ড এল ফেইনম্যান আগাম আভাস দিয়ে বলেছিলেন, ট্রাম্প যদিও যেতেন,১৯৯ দিনের বেশি তিনি স্বপদে থাকতে পারবেন না। কিন্তু তাঁর ভবিষ্যতবাণী ভুল প্রমাণিত করে নির্বাচিত হন ট্রাম্প।

বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতশালী দেশ মার্কিন যুক্তরাষ্টের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ায় ট্রাম্প বুঝেছিলেন, জনমানসে একটা ক্লিন ইমেজের প্রয়োজন। চতুর ট্রাম্প বোঝেন তাঁর অতীত জীবনের দুর্বলতা নিয়ে তাঁর যৌনসঙ্গিনীরা দর কষতে পারেন। তিনি সবচেয়ে চিন্তিত ছিলেন স্টর্মি ড্যানিয়েলকে। ব্যক্তিগত আইনজীবী কোহেন মারফৎ মুখ বন্ধ রাখার জন্য এক লাখ তিরিশ হাজার ডলারের নজরানা দিতে চান। সম্ভবত স্টর্মির চাহিদা ছিল বেশি। ফলে সোজা আঙুলে ঘি না উঠলে যেমন ব্যাকা আঙুল ব্যবহার করতে হয়, তেমনই ট্রাম্পের ব্যক্তিগত আইনজীবী পর্নো তারকা স্টর্মিকে ধমক দিয়ে চুপ করাতে চান। এটাই হিতে বিপরীত হলো।

ট্রাম্পের ব্যাক্তিগত আইনজীবী কোহেন অভিযোগের ভিত্তিতে গ্রেফতার হওয়ার পর স্বীকার করেন, পর্নো তারকা স্ট্রমিকে তিনি ট্রাম্পের নির্দেশে ১ লক্ষ ৩০ হাজার ডলার ঘুষ দিতে গিয়েছিলেন

পর্নো তারকা সোজা ক্যালিফোর্নিয়ার স্টেট কোর্টে মামলা ঠুকে দেন। মামলায় অভিযোগ জানিয়ে তিনি বলেছিলেন, ট্রাম্পের আইনজীবী মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে তাঁর যৌনসম্পর্কের কথা গোপন রাখার জন্য তিনি কোনো টাকা দাবি করেননি। এই নিয়ে যে চুক্তির কথা ট্রাম্প আইনজীবী বলছেন সেটা মিথ্যে। সেই মামলা এতদিন চলছিল। শেষপর্যন্ত সেই মামলায় ট্রাম্প দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন। ভারতীয় সময় মঙ্গলবার গভীর রাতে আত্মসমর্পণ করেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নির দপ্তর চার্জ গঠনের আগেই তাঁকে প্রশাসন গ্রেপ্তার করে।

নারীসঙ্গে মধ্যমণি ট্রাম্প

ট্রাম্পের বিরূদ্ধে মোট ৩৪ দফা অভিযোগ। যদিও ট্রাম্প নিজেকে নির্দোষ দাবি করে বলেছেন, তিনি আদালতে অভিযোগগুলির বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জ জানাবেন। কিন্তু ২০২৪ এর প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে তিনি অংশ নেওয়ার জন্য তহবিল গঠন করলেও মার্কিন আইন অনুযায়ী তিনি প্রেসিডেন্ট পদে নাম দাখিলে অনুমতি নাও পেতে পারেন। নিউ ইয়র্ক শহর জুড়ে কড়া নিরাপত্তার বেষ্টনীতে ঘিরে ফেলা হয়েছে। ২০২১ সালে হোয়াইট হাউসে ট্রাম্প সমর্থকদের বিশৃংখলা সৃষ্টির লজ্জাজনক ঘটনা প্রশাসন স্মরণে রেখেছে ।

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে বিকৃত যৌনতার অভিযোগ করেন পর্নো তারকা জেসিকা ড্রেক

পর্নো তারকা স্টর্মির অভিযোগ শুধু নয়, আরও বেশ কিছু বেআইনি কাজের অভিযোগেও অভিযুক্ত হয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। ট্রাম্পের বিরুদ্ধে জোর করে যৌনসম্পর্কের অভিযোগ এনেছেন আরও অনেকে। ২০০৬ সালে একই অভিযোগ আনেন আর এক পর্নো তারকা ও পরিচালক জেসিকা ড্রেক। তিনি জানান, বছর দশেক আগে ট্রাম্প একদিন ফোনে তার সঙ্গে সাক্ষাতের সময় চেয়ে নেন। এক হোটেলের স্যুটে ট্রাম্পের সঙ্গে রাত কাটান জেসিকা একা যেতে তিনি সাহস পাননি। তাই দুই বান্ধবীকেও সঙ্গে নেন। ট্রাম্প বিছানায় তিনজনকেই জড়িয়ে ধরে চুমু খেতে থাকেন। শেষপর্যন্ত ট্রাম্পের বিকৃত যৌনতার জন্য বিরক্ত হয়ে জেসিকা হোটেল ছেড়ে চলে যান। ট্রাম্প তাঁকে ফিরে আসার অনুরোধ করেন এবং এক রাতের জন্য দশ হাজার ডলার দিতে চান। জেসিকা ট্রাম্পের অনুরোধ রাখেননি।

মডেল সালমা হায়েকেরও অভিযোগ ছিল ট্রাম্পের বিরুদ্ধে

জনৈক মডেল সালমা হায়েক অভিযোগ জানিয়ে বলেছিলেন, বহু বছর আগে ট্রাম্প আমার বয় ফ্রেন্ডের কাছ থেকে আমার ফোন নম্বর নিয়ে ওঁর এক রিসোর্টে আমাকে আমন্ত্রণ জানান। আমি জানতাম ওই রিসোর্টে ট্রাম্প তাঁর মেয়ের বয়সী মেয়েদের আমন্ত্রণ করে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করত। আর এক মহিলা রোয়ান ব্রিউ মম অভিযোগে জানান, নারীরা ট্রাম্পের কাছে শুধুই ভোগের বস্তু জিল হার্থ নামে এক মডেল বলেন,৯০ এর দশকে ট্রাম্পের লালসার শিকার হন তিনি। স্তেফনিয়া ফার্নান্দেজ বলেন,১৭ বছর আগে এক সুইমিং পুল পার্টিতে তাঁকে যৌন হেনস্থা করেন ট্রাম্প। হলিউড অভিনেত্রী ডেমি মূর বলেছেন ট্রাম্প যে মোটেই জেন্টলম্যান নন,সেটা আমি হাড়ে হাড়ে টের পেয়েছি ।

মস্কোয় গিয়ে এখানেই ট্রাম্প যৌনলীলায় মেতে ওঠেন

সংবাদসূত্র মারফৎ জানা গেছে, রাশিয়ার রাজধানী মস্কোর রিৎজ কার্লটন হোটেলের একটি বিলাসবহুল স্যুটের ভাড়া দৈনিক ১৪ হাজার পাউন্ড। ওবামা যখন রাশিয়া সফরে গিয়েছিলেন, সস্ত্রীক এই হোটেলেই উঠেছিলেন। লন্ডনের অনলাইন ডেইলি মিরর পত্রিকা লিখেছিল, ২৫৯০ স্কোয়ার ফুটের এই স্যুটের জানলা দিয়ে ক্রেমলিন রেড স্কোয়ার, সেন্ট ব্যাসিল ক্যাথিড্রাল চার্চ দেখা যায়।অভিযোগ , রাশিয়ান গোয়েন্দা বিভাগের কর্তাদের হাত করে ট্রাম্প জোরদার গোপনীয়তার সঙ্গে ২০১৩ সালে মিস্ ইউনিভার্স ও একদল মক্ষিরাণীকে নিয়ে রাত কাটান ট্রাম্প।

ট্রাম্পের বিকৃত রুচির কথাও বলেছেন মক্ষিরাণীদের কয়েকজন। ট্রাম্প তাঁদের নগ্ন হয়ে মূত্রত্যাগ করতে বাধ্য করেন। ট্রাম্প সেই মুহূর্তগুলি তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করেন।নিউজিল্যান্ডের যৌনবিজ্ঞানী জন উইলিয়াম মানি অপ্রয়োজনীয় যৌন আগ্রহকে প্যারাফিলিয়া বলে চিহ্নিত করেন।যদিও মার্কিন মনোবিজ্ঞানী গ্লেন গ্যাবার্ড বলেন, কোনো যৌন বিকৃতি বলে কিছু হয় না,যতক্ষণ তা নিজের বা সঙ্গীর শারীরিক ও মানসিক ক্ষতি না করে। সেক্ষেত্রে যৌনসঙ্গিনীকে জোর করে নগ্ন হয়ে মূত্রত্যাগের নির্দেশ দেওয়া অমানবিক তো বটেই। সেটা যৌন বিকৃতিরই লক্ষণ।ধনকুবের প্রচুর অর্থের বিনিময়ে তাঁর বিকৃত ইচ্ছাকে প্রশ্রয় দিতেন।

পর্নোতারকা জেসিকা ড্রেক

২০০৬ সালে মিস্ যুক্তরাষ্ট্র ২০ বছর বয়সী ক্যারোলিনা হলভে অভিযোগ জানিয়ে বলেছিলেন , সেই সময় প্রতিটি সৌন্দর্য প্রতিযোগিতায় উপস্থিত থাকতেন ট্রাম্প। ৭০ বছর বয়সী লিডস ক্রুকের অভিযোগ, নিউ ইয়র্কের একটি ফ্লাইটের কেবিনে ট্রাম্প তাঁকে যৌন নির্যাতন করেন যখন তাঁর বয়স ছিল ২২। একটি রিয়েল স্টেট কোম্পানিতে রিসেপশনিস্ট ছিলেন তিনি। লিফটে জড়িয়ে ধরেন তাঁকে।

মার্কিন সাংবাদিক মাইকেল উলফ এক বিষ্ফোরক তথ্য দিয়েছেন তাঁর ফায়ার ফিউরি, ইনসাইড দ্য ট্রাম্প হোয়াইট হাউস বইটিতে। দুশো জনের বেশি ব্যক্তিত্বের সাক্ষাৎকার ভিত্তিতে লেখা এই বইয়ের ছত্রে ছত্রে লেখা ট্রাম্পের দাম্পত্য জীবনের অস্থিরতার কথা। ট্রাম্প নাকি তাঁর তৃতীয় স্ত্রী ৪৯ বছর বয়সী মেলেনিয়ার সঙ্গে এক বিছানায় ঘুমোন না। ট্রাম্প সারাদিন কি করেন,কোথায় যান তাই নিয়ে বরাবর মেলেনিয়ার উৎসাহ নেই।

ট্রাম্পের প্রাক্তন স্ত্রী ইভানা ট্রাম্প ও তার কন্যা ইভাঙ্কা ট্রাম্প

২০১৭ সালে ট্রাম্পের প্রাক্তন স্ত্রী ইভাঙ্কা ট্রাম্পের মা ইভানা একটি বই লিখেছেন রেজিং ট্রাম্প। সেখানে তিনি লিখেছেন ১৯৯২ সালে মার্লা মেপলস নামে একটি মেয়ের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ায় ইভানা বিচ্ছেদ নেন। বিচ্ছেদের সময়ে ট্রাম্পকে দেখেছি ওঁর কাছে বিচ্ছেদটাও যেন একটা ব্যবসায়িক চুক্তি।২০১৭ তে ট্রাম্প মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার কিছুদিন পরে কুইন্সল্যান্ড ইউনিভার্সিটি অফ টেকনোলজি বিভাগ গবেষণা করে জানায় , ট্রাম্প একজন মানসিক ভারসাম্যহীন। সংবাদসূত্রের খবর মেশিন লার্নিং ও কম্পিউটারাইজড বৈজ্ঞানিক মেথড ব্যবহার করে ১০৬ জন ব্যবসায়িক নেতার প্রোফাইল ডিক্রিপ্ট করেন গবেষকরা। এই তালিকায় ছিলেন_ ইলন মাস্ক, বিল গেটস, ওপরাহ উইন ফ্রে ও ডোনাল্ড ট্রাম্প।গবেষক দলের প্রধান অধ্যাপক অবচংকা বলেন , এই সব মানুষদের টুইট বিশ্লেষণ করে সর্বোচ্চ স্থানে ট্রাম্পকে রাখা হয়েছে। এই ব্যক্তিত্বদের তালিকা প্রস্তুত করেছিল ফোবস ম্যাগাজিন ও ফরচুন পত্রিকা।

পারিবারিক সম্পত্তি গ্রাসের অভিযোগ রয়েছে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে। অভিযোগকারিনী স্বয়ং ট্রাম্পের ভাইঝি মেরী ট্রাম্প। ট্রাম্পের চরিত্র নিয়েও বই লিখেছেন মেরী ট্রাম্প ( ডানদিকে )

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে শুধু মডেল বা পর্নো তারকারাই অভিযোগ করেছেন তাই নয়, ভাইঝি মেরী ট্রাম্পও মারাত্মক অভিযোগ করেছেন। তিনি বলেছেন,১৯৯১ সালে মেরীর বাবা ফ্রেডর ট্রাম্প মারা যান। তাঁর বিশাল সম্পত্তি ডোনাল্ড ট্রাম্প ও অন্য ভাইরা আত্মসাৎ করে নেন। এই অভিযোগের আগেই কাকা ডোনাল্ড ট্রাম্পকে নিয়ে মেরী একটি বই লেখেন, টু মাচ অ্যান্ড নেভার এনাফ হাউ মাই ফ্যামিলি ক্রিয়েটেড দি ওয়ার্ল্ড মোস্ট ডেঞ্জারাস ম্যান। বিতর্কিত বইটি এখন পর্যন্ত ১০ লাখ কপি বিক্রি হয়ে গেছে। ট্রাম্প বইটি প্রকাশ রুখতে হাজার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন।কারণ প্রকাশক ছিলেন যেমন জেদি,তেমন সাহসী। আর এক মডেল অ্যামি ডরিস একটি ব্রিটিশ দৈনিকে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে বলেছেন,২০১৬; সালে যখন ট্রাম্প প্রথম ভোটে দাঁড়ায় তখনই আমি মুখ খুলতাম। কিন্তু আমার শিশুকন্যারা ছিল নেহাতই ছোট। তাই ভয়ে চুপ ছিলাম। আমি ট্রাম্পের লালসার শিকার হয়েছিলাম।ট্রাম্পের বিরুদ্ধে এও অভিযোগ প্রবেশিকা পরীক্ষা তিনি টাকার জোরে অন্য কাউকে দিয়ে করান। অর্থাৎ শিক্ষাক্ষেত্রে দুর্নীতি আমেরিকাতেও হয়।

লাস্যময়ী পর্নো তারকা স্টর্মি ড্যানিয়েল

মার্কিন গনতন্ত্রে এই প্রথম দেশের কোনও ক্ষমতার শিখরে থাকা মানুষকে ফৌজদারি অপরাধে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে তাঁর বিরূদ্ধে ওঠা মানহানির মামলায় হেরে গেছেন পর্নো তারকা। তাই ট্রাম্পের আইনি লড়াইয়ের খরচ পর্নো তারকাকেই বহন করতে হবে। এমনই আদেশ আদালতের। যে আইনজীবী মারফৎ টাকা পাঠিয়ে পর্নো তারকার মুখ বন্ধ করতে চেয়েছিলেন ট্রাম্প সেই আইনজীবী গ্রেপ্তার হওয়ার পর সত্যি কথা আদালতে উগড়ে দেন।

গ্রেফতার এর মুহূর্তের ছবি ডোনাল্ড ট্রাম্প

ট্রাম্প গ্রেপ্তারের পর একটি বিষয়ে কলকাতার সঙ্গে মিল খুঁজে পাওয়া গেছে। পার্থ চ্যাটার্জিকে যখন আদালতে তোলা হয়,তখন যেমন জনতা চোর চোর স্লোগানে আওয়াজ তোলেন, আমেরিকাতেও ট্রাম্প যখন আদালতে ঢোকেন ও বেরিয়ে আসেন তখন একদল ট্রাম্প বিরোধী ট্রাম্পকে কটূক্তি করতে থাকেন। আমাদের দেশে আর একটি ঘটনা বেশ চিত্তাকর্ষক।মার্কিন দেশে হাতি শিকারের অনুমতি দিয়েছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। বেজায় চটেছিলেন বলিউড অভিনেত্রী সোনম কাপুর। তিনি বলেছিলেন ট্রাম্প আসলে এক নির্বোধ মানুষ।

আবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদিজী সমস্ত প্রটোকলের উর্দ্ধে উঠে আমেরিকা ভ্রমণে গিয়ে বলে এসেছিলেন আব কি বার, ট্রাম্প সরকার।যদিও মোদিজীর সেই অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করেন আমেরিকার সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ।ট্রাম্পের ভবিতব্য কি সেটা ভবিষ্যতই বলবে। তবে ট্রাম্প ভেঙেছেন , কিন্তু মচকাননি। তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, আগামী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ট্রাম্পকে হারাতে পারবেন না জেনেই বাইডেন সরকার তাঁর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছে। আমেরিকার রিপাবলিকান দলও অবশ্য আগামী নির্বাচনে আইনি জটিলতা না থাকলে ট্রাম্প কেই প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী করে ভোট যুদ্ধে অবতীর্ণ হবে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েই রেখেছে।

এদিকে ট্রাম্পের কারাবাসে খুশি সে দেশের ভারতীয় অভিবাসীরা।কেননা তাঁরা চিন্তিত ছিল, আগামী নির্বাচনে যদি ট্রাম্প ফিরে আসেন তাহলে তাঁদের আমেরিকা ছেড়ে দেশে ফিরে যেতে হবে।করোনা পরিস্থিতির পর সেদেশে বেকারত্ব বেড়েছে। ট্রাম্প তাই আমারিকানদের কাছে জনপ্রিয় এক স্লোগান উপহার দিয়েছেন। আমেরিকা ফর আমেরিকান। বিদেশিদের তাড়িয়ে সেই চাকরি তিনি ক্ষমতায় ফিরলে আমেরিকার যুবসমাজকে উপহার দেবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *