মেসি-রোনাল্ডোকে পরের বিশ্বকাপেও দেখছেন রোনাল্ডিনহো?

বেঙ্গল ওয়াচ নিউজ ডেস্ক ::

 

 

 

 

দুর্গাপুজোর আগে কলকাতায় এসেছেন রোনাল্ডিনহো। কিন্তু ব্রাজিলের এই কিংবদন্তি বিশ্বকাপার ফুটবল নিয়ে কথা বলবেন না, তা কী করে হয়? সেটাই হলো ইমামি গ্রুপের একটি ইভেন্টে।

বাইপাসের ধারের একটি হোটেলে তিনি এদিন মিলিত হলেন ইমামি ইস্টবেঙ্গল দলের সঙ্গে। হেড কোচ কার্লেস কুয়াদ্রাতের সঙ্গে আলাপচারিতায় উঠে এলো লিওনেল মেসি ও ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর প্রসঙ্গ।

তাকে সংবর্ধনা প্রদান করা হয় ইমামি গ্রুপের তরফে। তাঁকে উপহার দেওয়া হয় ক্লাবের জার্সি। ইমামি গ্রুপের তেল ও মশলা দিয়ে তৈরি লুচি, পোলাও-সহ নানা রকমের বাঙালি পদ রাখা ছিল রোনাল্ডিনহোর জন্য। তিনি তা টেস্ট করেও দেখেন। ইমামি ইস্টবেঙ্গলের ফুটবলার, কোচ, সাপোর্ট স্টাফদের সঙ্গে ছবিও তোলেন।

কলকাতার বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ফুটবল পায়ে দেখা গিয়েছে রোনাল্ডিনহোকে। তা সে রাজারহাটে মার্লিন রাইজের আর টেন আকাদেমির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনেই হোক বা শ্রীভূমি স্পোর্টিং ক্লাবের দুর্গাপুজোর প্রাঙ্গণে। কিন্তু ফুটবল নিয়ে কথা বললেন ইমামির অনুষ্ঠানেই। প্রশ্নকর্তার ভূমিকায় ছিলেন কোচ কুয়াদ্রাত।

উঠতি ফুটবলারদের জন্য বিশেষ বার্তা দিয়ে জানালেন প্রোটিনের গুরুত্ব। রোনাল্ডিনহো বলেন, পেশাদার ফুটবলার হতে গেলে শরীরের বিষয়ে যত্ন নিতে হবে। ক্রীড়াবিদদের ডায়েটে প্রোটিনের গুরুত্ব অপরিসীম। আমি যখন ফুটবল খেলতাম পুষ্টির দিকে আমি সব সময় নজর রাখতাম। পেশাদার ফুটবলার হতে গেলে শৃঙ্খলাপরায়ণতা বাধ্যতামূলক।

লিওনেল মেসির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রোনাল্ডিনহোর। তিনি কুয়াদ্রাতের প্রশ্নের উত্তরে বলেন, আমি মনে করি শৃঙ্খলাপরায়ণতা বজায় রাখতে পারলে লিওনেল মেসি ও ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো পরের বিশ্বকাপেও খেলতে পারবেন। তাঁদের দক্ষতা ও গুণ নিয়ে কোনও প্রশ্নই নেই। শরীর ও ওয়ার্কলোডের প্রতি যত্নশীল হলেই তাঁরা আরও একটি বিশ্বকাপে নামতে পারবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *