মহম্মদ সামির হাত ধরেই কি ২০২৩ বিশ্বকাপ পেতে চলেছে ভারত?

বেঙ্গল ওয়াচ নিউজ ডেস্ক ::

 

 

 

 

ভারত প্রকৃতপক্ষে একটি ধর্ম নিরপেক্ষ (সেকুলার ) দেশ। হিন্দু প্রধান এই রাষ্ট্রে সমস্ত ধর্মের মানুষদের সমান অধিকার। ভারতের ক্রিকেটের ইতিহাসে এক ঝাঁক প্রতিভাধর মুসলিম ক্রিকেটার রাজত্ব করেছেন। আজহরুদ্দিন থেকে মহম্মদ কাইফ, জাহির খান থেকে ইরফান পাঠান হয়ে মহম্মদ সামি। এক বিরাট লাইন।

এই তালিকায় প্রথমেই আছেন প্রাক্তন ভারতীয় অধিনায়ক ডান হতি ক্লাসিক ব্যাটস ম্যান আজাহারুদ্দিন(১৯৮৪ – ২০০০)।
এর পরেই আছেন অসাধারণ বাঁহতি বোলার জাহির খান। ২০১১ সালের বিশ্বকাপ জয়ে তাঁর ভূমিকা বিরাট। তিনি ওই টুর্নামেন্ট এ ২১টি উইকেট নিয়েছিলেন। ২০০ একদিনের ম্যাচে ২৮২ টি উইকেট তার দেখলে। টেস্ট ম্যাচে তিনি পেয়েছেন ৩১১ টি উইকেট।

মহম্মদ কাইফ ভারতের হয়ে ১২৫টি ওয়ান ডে ও ১৩ টা টেস্ট খেলেছেন। তিনি ভালো ব্যাটসমায়ান যেমন ছিলেন তেমনই ছিলেন অসাধারণ ফিল্ডার।

২০০৩ – ২০১২ সাল পর্যন্ত ইরফান পাঠান ভারতীয় দলের বোলার ও পরে অলরাউন্ডার ছিলেন। ২০০৭ T20 ওয়ার্ল্ড কাপ ফাইনালে ৩টি উইকেট নিয়ে তিনি হয়েছিলেন ম্যাচের সেরা।

ইউসুফ পাঠান ২০০৭ থেকে ২০১২ পর্যন্ত ভারতীয় ক্রিকেট মাঠের অংশ ছিলেন। ভারতের হয়ে ৫৭ ওডিআই ও ২২ টি T20 খেলেছেন।

বর্তমান ভারতীয় দলে দু’জন মুসলিম খেলোয়াড় অবদান রাখছেন, তারা হলেন মহম্মদ সামি ও মহম্মদ সিরাজ। দুজনেই দারুন ছন্দে। মহম্মদ সামি ৩ ম্যাচে ১৪ উইকেট নিয়ে বিশ্ব কাপের ইতিহাসে ভারতীয় সেরা বোলারদের তালিকায় নিজের নাম শীর্ষে লিখে দিয়েছেন। নানা ঘাত – প্রতিঘাতের মধ্যেও সামি ক্রিকেটে নিজেকে আত্মনিয়োগ করেছেন। ফল পেয়েছেন হাতেনাতে। বিশেষ করে সেমি ফাইনালে একাই ৭টি উইকেট তুলে নিয়ে ভারতকে পৌঁছে দিয়েছেন ফাইনালে। মহম্মদ সিরাজও বল হাতে দারুন সফল। তাই তো ক্রিকেট প্রেমীরা ওই ‘সেমি ফাইনাল’কে আনন্দে ‘সামি ফাইনাল’ বলছেন।

এছাড়াও ভারতীয় ক্রিকেট দলে মুনাফ প্যাটেল, ওয়াসিম জাফরান, মুস্তফা আলি, পতাউদি সহ অনেক মুসলিম ক্রিকেটারের আগমন ঘটেছে। কিন্তু মহম্মদ সামি যেন একদম ব্যতিক্রমী উইকেট ক্ষুধার্ত ক্রিকেটার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *