কিছু ভোটার বেইমান, গুবরে পোকা, পঞ্চায়েত নির্বাচনে এজেন্টকে দেখিয়ে জোড়া ফুলে ছাপ দিতে হবে এটাই দলের নির্দেশ বললেন শাসক দলের শালবনীর মহিলা নেত্রী

শালবনী পঞ্চায়েত সদস্য ফুলটুসি দাস

বেঙ্গল ওয়াচ নিউজ ডেস্ক : শালবনী পঞ্চায়েত এলাকায় কিছু ভোটার আছে, বেইমান। গুবরে পোকা। দেখবেন গুবরে পোকার নজর থাকে গোবরের দিকে। সারা বছর মমতা ব্যানার্জির পঞ্চায়েত পরিকল্পনার বিভিন্ন প্রকল্পের সুবিধে নেবে আর ভোটের সময় মদ মাংসের জন্য আর পাঁচশ টাকা ঘুষ নিয়ে বিজেপি কে ভোট দেবে সেটা হবে না। দলের নির্দেশ আগামী পঞ্চায়েত ভোটে তৃণমুল এজেন্টকে দেখিয়ে জোড়া ফুলে ছাপ দিতে হবে এটাই দলের নির্দেশ। এমনটাই বলেছেন শালবনী পঞ্চায়েত সদস্য ফুলটুসি দাস।

স্থানীয় এলাকায় শাসকদলের সমর্থকদের এক জমায়েতে ফুলটুসি দাস ঝাঁঝালো কণ্ঠে বলেন, অমিত শাহ আগামী লোকসভায় ৩৫ টি আসন জিতে রাজ্যের মা মাটি মানুষের সরকার ফেলে দেবে। এত সহজ নয়।পঞ্চায়েত নির্বাচনেই দল সিদ্ধান্ত নিয়েছে এলাকার মানুষদের তৃণমুল এজেন্টদের দেখিয়ে ভোট দিতে হবে।আমরা বুঝতে পারব কারা বছরের ৩৬৪ দিন রাজ্য সরকারের সব সুবিধে নেবে আর ভোটের সময় মদ মাংস ভেট পেয়ে আর পাঁচশ টাকা নগদ পেয়ে বিজেপি কে ভোট দেবে সেটা হবে না।আসলে কিছু ভোটার গুবরে পোকা।নজর সবসময় গোবরে।আমরা তাদের চিহ্নিত করে রাখতে চাই।

সাংবাদিকেরা যখন তাঁকে বলেন, আপনি সংবিধানবিরোধী কথা বলছেন, দল কি দায় নেবে? জবাবে পঞ্চায়েত সদস্য ফুলটুসি দাস বলেন, দল কি বলবে সেটা পরের কথা। আমার কথা আমি বলেছি। অমিত শাহ যদি সরকার ফেলার ভয় দেখাতে পারেন,তাহলে আমিও যা বললাম তা নিয়ে আমার কোনও লজ্জা নেই, অনুশোচনাও নেই। যা বলেছি ঠিক বলেছি। তাঁকে প্রশ্ন করা হয় , জেলা সভাপতির কি আপনার বক্তব্যে সায় আছে? জবাবে তিনি বলেন,জেলা সভাপতিকে তো ২০১৯ এর ভোটে মাঠে দেখা যায়নি। আমার আশ্রয়ে ছিলেন। তখন বিজেপির বিরুদ্ধে আমিই লড়েছি।

জেলা সভাপতি সুজয় হাজরা

ফুলটুসি দাসের বক্তব্যের বিরোধিতা করে জেলা সভাপতি সুজয় হাজরা বলেন,নির্বাচনের নিয়ম অনুযায়ী গত নির্বাচনে ৫০ শতাংশ ছিল মহিলা সংরক্ষিত। আরও কিছু তপশিলী ইত্যাদিদের জন্য সংরক্ষিত হওয়ায় আমরা রাজনৈতিক চেতনাসম্পন্ন ও দলের আদর্শে অবগত প্রার্থী না মেলায় বাধ্য হয়েছিলাম কিছু নতুন প্রার্থীদের মনোনয়ন দিতে। ফুলটুসি দাস যা বলেছেন, সেটা তাঁর ব্যক্তিগত মত।দল সমর্থন করে না। বরং আমাদের নেতা অভিষেক ব্যানার্জি বলেছেন, পঞ্চায়েত নির্বাচন হবে সুষ্ঠভাবে। কোনো দুর্নীতিকে প্রশ্রয় দেওয়া হবে না। সেখানে এমন অজ্ঞানসুলভ উক্তি দলেরই ক্ষতি করছে। ফুলটুসি দাসকে দল অতি উৎসাহের জন্য জবাবদিহি চাইবে কিনা এখনও তা জানা যায়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *