পশ্চিমবঙ্গ সরাসরি বিক্রি সভা ২০২৩ আয়োজন করলো ওয়েস্টবেঙ্গল ডায়রেক্ট সেলিং এসোসিয়েশন

শ্রীজিৎ চট্টরাজ : শুক্রবার দুপুরে মধ্য কোলকাতার এক পাঁচতারা হোটেলে ইন্ডিয়ান ডায়রেক্ট সেলিং এসোসিয়েশন বিভিন্ন ভোগ্যপণ্য উৎপাদক সংস্থার পণ্য সরাসরি ক্রেতাদের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জীবিকায় নিযুক্তদের নিয়ে একটি ওয়েস্টবেঙ্গল ডায় রেক্ট সেলিং সভা ২০২৩ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এই অনুষ্ঠানে বিভিন্ন দেশি বিদেশি ভোগ্যপণ্য উৎপাদন সামগ্রী যাঁরা ঘরে ঘরে সরাসরি কোনো পরিবেশক, পাইকারী বা খুচরা বিক্রেতাদের সাহায্য ছাড়াই পৌঁছে নিজেদের জীবিকা নির্বাহ করেন তাঁদের মধ্যে কিছু উল্লেখযোগ্য বিক্রেতাদের সম্মানিত করে, তেমন, এই জীবিকার সঙ্গে যুক্ত বিক্রয় প্রতিনিধিদের একটি ছাতার নিচে সম্মিলিত করার প্রয়াসও জারি রাখার ক্ষেত্রে একটি ইতিবাচক পদক্ষেপ সম্পর্কে সম্যক ধারণা তৈরির প্রয়াসকে সফল করতে এই সভার আয়োজন করে। মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের চেয়ারম্যান রজত ব্যানার্জি সংগঠনের ভাইস চেয়ারম্যান বিবেক কাটোচ,জেনারেল ম্যানেজার চেতন ভরদ্বাজ এবং পশ্চিমবঙ্গ সরকারের কনজিউমার অ্যাফেয়ার্স ডেভলপমেন্ট ডিপার্টমেন্টের প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি রোশনি সেন।

রোশনি সেন
কনজিউমার অ্যাফেয়ার্স ডেভলপমেন্ট ডিপার্টমেন্ট প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি প, বঙ্গ,সরকার

চেতন ভরদ্বাজ এবং রজত ব্যানার্জি, এই মুহূর্তে ভারতে তথা এরাজ্যে সরাসরি ভোগ্যপণ্য উৎপাদকদের পণ্যের গুণগত মান সম্পর্কে ক্রেতা সন্তুষ্টি ও রাজ্য দেশের মধ্যে সরাসরি বিক্রয়ের ক্ষেত্রে দ্বিতীয় স্থান অধিকার নিয়ে কিছু তথ্য পরিবেশন করেন। রাজ্য সরকারের তরফে উপস্থিত রোশনি সেন জানান,নারী ক্ষমতায়নের ক্ষেত্রে এই সরাসরি বনারী বিক্রেতারা সংসারের দায় সামলে যেভাবে আর্থিক স্বনির্ভর হয়ে শুধু যে অস্তিত্বের মর্যাদা বাড়িয়েছেন তাই নয়, আর্থিক সংকট থেকে স্বামী, পুত্র ও পিতাকে সাহায্য করছেন। আর্থিক স্বনির্ভরতা নারীকে যে দিশা দেখায় সেই কাজটি সহজ হয়েছে ভোক্তার কাছে সরাসরি তাঁদের প্রয়োজনীয় পণ্য পৌঁছে দিয়ে।

তিনি আরও বলেন,প্রশাসনের ক্রেতা সুরক্ষার ব্যাপারে একটি দায়বদ্ধতা আছে। তাই প্রশাসনের লক্ষ্য রাখতে হয়, মূল্য, ওজন ও পণ্যের মান নিয়ে ক্রেতাদের যেন অভিযোগ না থাকে।সমীক্ষা বলছে ,সরাসরি পণ্য সরবরাহকারী সংস্থাগুলির পণ্যের মান নিয়ে তেমন কোনো অভিযোগ নেই। ক্রেতা ও সরাসরি বিক্রেতার স্বার্থ রক্ষায় ওয়েস্ট বেঙ্গল ডায়রেক্ট সেলিং এসোসিয়েশন সতর্ক দৃষ্টি রাখে।তবে এসোসিয়েশনের কাছে অনুরোধ ,পণ্যের দাম যাতে ক্রেতার সাধ্যের মধ্যে থাকে তার খেয়াল রাখা।

চিনকে পেছনে ফেলে ভারত সর্বোচ্চ জনসংখ্যার দেশ হতে চলেছে। পাশাপাশি দেশে কর্মসংস্থানের ছবিটাও কিন্তু ইতিবাচক নয়। অর্গনাইজেশন ফর ইকোনমিক অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট কমিটির ২০২১ সালে এক সমীক্ষা করে জানিয়েছিল আগামী দশকে দেশে কর্মক্ষম যুব সমাজের সংখ্যা হবে প্রায় ১০০ কোটি। গত করোনা প্রবাহে নিম্ন বেতন ও কর্মহারার জন্য এক বিশাল সংখ্যক নতুন প্রজন্ম ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। মেয়েদের অবস্থা আরও ভয়ানক।সেক্ষেত্রে অ্যামওয়ে, মোদী কেয়ার, ট্যাপারওয়ার জাতীয় দেশি বিদেশি সংস্থাগুলিতে বহু নারী পুরুষ সরাসরি বিক্রি প্রকল্পে সাফল্যের সঙ্গে কাজ করে ব্যক্তি অস্তিত্বকে বেসুরক্ষিত করছেন। নিঃসন্দেহে এটি আসার কথা।সংগঠনের তরফে চেয়ারম্যান রজত ব্যানার্জি এও বলেন,সারা দেশের মধ্যে পশ্চিমবঙ্গ দ্বিতীয় স্থানে আছে।

ভারতের মধ্যে পূর্বাঞ্চলে অর্থাৎ পশ্চিমবঙ্গ,বিহার, ওড়িশা সারা ভারতের ব্যবসার পরিমাণে এক উল্লেখযোগ্য স্থানে আছে। উল্লেখ্য, এই মুহুর্তে ভারতে প্রায় ৮০ লক্ষ সরাসরি পণ্য বিক্রয়ের কাজে নিযুক্ত ভাছেন ৮০ লক্ষ মানুষ।এঁদের ৫o শতাংশই নারী।দেশে বেকারত্বের যে বোঝা ,সেখানে এই সরাসরি ক্রেতাদের কাছে সরাসরি বিক্রয় কাজে নিযুক্তদের ক্ষেত্রে নেই কোনো শিক্ষাগত যোগ্যতার মাপকাঠি। নেই সময়ের সীমাবদ্ধতা। একটি মাত্র যোগ্যতার মাপকাঠি পরিশ্রম আর পরিশ্রম।অনুষ্ঠানে উপস্থিত বেশ কিছু মহিলা স্বউদ্যোগী তাঁদের রোমাঞ্চকর অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেন অনুষ্ঠানে আগত অতিথিদের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *