আবেগে ভাসলেন সোনিয়া

বেঙ্গল ওয়াচ নিউজ ডেস্ক ::

 

 

 

 

ভারতে দীর্ঘদিন ধরেই মহিলা সংরক্ষণ বিল নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। অবশেষে মঙ্গলবার সেই বিল নিয়ে আলোচনা শুরু হয়। প্রথম বক্তা হিসাবে সোনিয়া গান্ধী জানালেন, নির্বাচনী রাজনীতিতে মহিলাদের সংরক্ষণ দিতে রাজীব গাঁধীই প্রথম উদ্যোগী হয়েছিলেন। কিন্তু সেই সময় সংখ্যায় কম হওয়ায়, রাজ্যসভায় বিলটি পাস হয়নি। মহিলা সংরক্ষণ বিল নিয়ে আলোচনার দিন তাই তাঁর কাছে আবেগপূর্ণ বলে জানালেন।
দেশের সংসদ এবং বিধানসভাগুলিতে মহিলাদের ৩৩ শতাংশ সংরক্ষণ দিতে নয়া বিল এনেছে কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদি সরকার। মঙ্গলবারই সেই বিল সংসদে পেশ হয়। নির্বাচনী রাজনীতিতে মহিলাদের সংরক্ষণ দেওয়ার কথা প্রথম কারা ভেবেছিল, তা নিয়ে বিরোধীদের সঙ্গে তরজা শুরু হয় সরকারের।
এদিন তার সূচনা করেন সনিয়া। সংসদে তিনি বলেন, “ব্যক্তিগত ভাবে আমার জন্য এই দিনটি অত্যন্ত আবেগের। কারণ স্থানীয় নির্বাচনে মহিলাদের প্রতিনিধিত্বের সুযোগ করে দিতে আমার জীবনসঙ্গী রাজীব গাঁধীই প্রথম সংবিধানে সংশোধন ঘটাতে উদ্যোগী হন। কিন্তু রাজ্যসভায় মাত্র সাতটি ভোটে বিলটি পাস হয়নি।” উপস্থিত সকলেই আবেগঘন হয়ে ওঠে।

তিনি সজল চোখে আরও বলেন, ” আজ দেশের স্থানীয় প্রশাসনে ১৫ লক্ষ নির্বাচিত মহিলা জনপ্রিতিনিধি রয়েছেন। কিন্তু রাজীব গাঁধীজির স্বপ্ন অর্ধেকই পূরণ হয়েছে। এই বিল পাস হলে, তা সম্পূর্ণ রূপে পূরণ হবে।” তাই সোনিয়া এই বিল নিয়ে খুবই উৎসাহী। মহিলা সংরক্ষণ বিলে কংগ্রেসের সমর্থন রয়েছে বলে জানান সনিয়া। কিন্তু বিল পাস হলেই, আইন কার্যকর হচ্ছে না। বরং তার জন্য ২০২৯ সাল পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *