ছুটে আসছে ‘তেজ’, পুজোতে ভাসবে কি বাংলা!

বেঙ্গল ওয়াচ নিউজ ডেস্ক ::

 

 

 

বর্ষকালে বৃষ্টির প্রবল ঘাটতি। যেন সেই ঘাটতি পূর্ণ করতেই ভাদ্রের শেষে উঠেপড়ে লেগেছে প্রকৃতি। বৃষ্টিতে ভেসেছে গণেশ চতুর্থী, বিশ্বকর্মা পুজো। সামনেই মহালয়া আর তারপর বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গাপুজো। কিন্তু, উৎসবের আগেই দুঃসংবাদ শোনালেন আবহাওয়াবিদরা। অক্টোবরের শুরুতেই আছড়ে পড়তে পারে ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড়। পণ্ড করতে পারে পুজোর সমস্ত পরিকল্পনা। আন্দামান সাগরের ঘনীভূত নিম্নচাপ ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়ে ছুটে আসবে বাংলা, ওড়িশার দিকে। এখন দুরহ পুজোর খ্যাতি কমবেশি সারা পূর্ব ও পশ্চিম ভারতে। কেবলমাত্র পশ্চিমবঙ্গ নয়। বিহার, ওডিশা, কর্নাটক, দিল্লি, অসম সহ একাধিক রাজ্যে ধুমধাম করে দুর্গোৎসব পালিত হয়। পাশাপাশি একইসময় দেশজুড়ে পালিত হয় নবরাত্রি উৎসব। কিন্তু, আবহাওয়াবিদদের আশঙ্কা অক্টোবরে ঘূর্ণিঝড় তাণ্ডব চালাতে পারে একাধিক রাজ্যে। ফলে উৎসবের মরশুমে ভারী দুর্যোগ চলতে পারে দেশজুড়ে। শঙ্কিত আপামর বাঙালি।

মৌসিম ভাবনা বা আলিপুর আবহাওয়া অফিসের তরফে এখনও কোনও ঘূর্ণিঝড় নিয়ে কোনও পূর্বাভাস দেওয়া হয়নি। তবে একাধিক আবহাওয়া গবেষণা সংস্থার তরফে খবর, আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর পূর্ব মধ্য বঙ্গোপসাগরে একটি শক্তিশালী নিম্নচাপ তৈরি হবে। যা ক্রমশ ঘূর্ণিঝড়ের রূপ নেবে অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে। অ্যাকিউ ওয়েদারের আন্তর্জাতিক আবহাওয়াবিদ জেসন নিকোলাস বলেন, ‘সেপ্টেম্বরের শেষ কিংবা অক্টোবরের শুরুতে বঙ্গোপসাগরে একটি জোরাল ঘূর্ণিঝড় তৈরি হবে।’

আরও একাধিক আবহাওয়া বিশেষজ্ঞদের মতে, পূর্ব ভারতের দিকে ছুটে আসছে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়। ২৯ সেপ্টেম্বর থেকে ৫ অক্টোবরের মধ্যে একটি শক্তিশালী ঘূর্ণাবর্ত প্রভাব ফেলবে পূর্ব ভারতে, এমনটা আগেও জানিয়েছিল IMD। এটিই সাইক্লোনে রূপান্তরিত হবে কি না, তা নিয়ে এখনও পর্যন্ত কোনও আপডেট দেয়নি মৌসম ভবন।

গবেষকরা জানাচ্ছেন, এই সাইক্লোটি আছড়ে পড়লে সেটির নাম হবে ‘তেজ’। ভারতের তরফে এই নামটি দেওয়া হয়েছে। উত্তর অন্ধ্র প্রদেশ, দক্ষিণ ওডিশায় এই সাইক্লোনের সমচেয়ে বেশি তাণ্ডব চালানোর সম্ভাবনা। কিন্তু তার ব্যাপক প্রভাব পারতে পারে বাংলাতেও। ফলে অক্টোবরের শুরু থেকেই পুজোর মরশুমে এই ঘূর্ণিঝড় সমস্ত প্ল্যান ভেস্তে দিতে পারে বলেই মনে করা হচ্ছে। এখনই কিছু বলা না গেলেও বাঙালির প্রাণের উৎসব নিয়ে ভয় রয়েই গেলো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *